বিএনপি প্রর্থীরা জনরোশের ভয়ে আছে – তোফায়েল আহমেদ

কাজী মহিবুল্লাহ আযাদ, আমাদের ভোলা.কম।
আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, গত ১০ বছর ধরে বিএনপি প্রর্থীরা তাদের নির্বাচনী এলাকায় আসেনি। এখন তারা জনরোশের ভয়ে আছে। তাই কিছু না করে ঢাকায় বসে খবরের কাগজে বিবৃতি দেয়। কিন্তু আমরা বিরোধী দলে থাকা অবস্থায় নিয়মিত এলাকায় এসেছি।
বৃহস্পতিবার বিকেলে ভোলা-১ আসনের পশ্চিম ইলিশা ইউনিয়নের চর জাঙ্গালিয়া স্কুল এন্ড কলেজের মাঠে এক পথ সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে তোফায়েল আহমেদ এসব কথা বলেন।
আগামী ৩০ ডিসেম্বর শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি আস্থা রেখে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে পুনরায় বিজয়ী করার আহবান জানিয়ে তোফায়েল বলেন, তিনি (শেখ হাসিনা) গড়িব, দুখি মেহনতী মানুষের জন্য নিজের জীবন উৎসর্গ করেছেন তার পিতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মত। আজ তাই তিনি আন্তর্যাতিক বিশ্বের মর্জাদাশীল নেতা।
তিনি বলেন, শেখ হাসিনার সরকার গড়িব মানুষের জন্য ১০ টাকা কেজি দরে চাল দিচ্ছে। অসহায় মানুষের জন্য ভিজিএফ কার্ড দেয়া হয়। বৃদ্ধ ভাতা, বয়স্ক ভাতা, স্বামী পরিত্যক্তা ভাতা, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতাসহ অনেক সুজোগ সুবিধা দেয়া হচ্ছে। এতে করে মানুষের অনেক উপকার হচ্ছে। জীবন মান পূর্বের চেয়ে বৃুদ্ধ পেয়েছে।
তিনি আরো বলেন, এছাড়া আমি নিজে প্রত্যেক ঈদের আগে গড়িব মানুষের জন্য শাড়ি-লুঙ্গি, শীতে গড়ম কাপর বিতরণ করি। এবার যেহেতু নির্বাচন তাই এখোনো শীতবন্ত্র দিতে পারিনি। নির্বাচনের পরে ইনসাল্লাহ শীতের কাপর দিব। ভোলার ফেরি আমাদের সময় হয়েছে। নির্বাচনের পরে ভোলা-বরিশাল সেতু নির্মাণ কাজ আরম্ভ হবে বলেও মন্ত্রী উল্লেখ করেন।
তোফায়েল বলেন, আজকে যেই স্কুলের মাঠে সভা হচ্ছে সেটি এমপিওভুক্ত করেছি আমরা। এই কলেজ ভবন আওয়ামী লীগ সরকার করে দিয়েছে। এই গ্রামের কাঁচা রাস্তা আমরা পাকা করে দিয়েছি। অন্ধকার গ্রামে বিদ্যূৎ এনে দিয়েছি। মেঘনার নদীর ভাঙ্গন রোধসহ অনেক উন্নয়ন হয়েছে তার সরকারের গত ১০ বছরে।
প্রবীন এই আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের আগেও এই দেশে অন্য সরকার ক্ষমতায় ছিলো। তারা বাংলার মানুষের জন্য কি করেছে প্রশ্ন রাখেন তিনি। বরংচ বিএনপি-জাতীয় পার্টির আমলে ভোলায় যারা মন্ত্রী ছিলেন, তাদের বাড়ির রাস্তা আমরা করে দিয়েছি।
মন্ত্রী বলেন, ২০০১ সালের নির্বাচনের পরে আমাদের উপর অনেক অত্যাচার করা হয়েছে। ভোলা-৩ আসনের আব্দুল মালেক নামের এক লোকের দুটি চোখ তুলে নেয়া হয়েছে। মায়ের সামনে মেয়েকে পাশ্ববিক নির্যাতন করেছে। আওয়ামী লীগের মিটিং এ মরিচের গুরা মেরে পন্ড করে দিয়েছে। মিলাদ পড়তে দেয়া হয়নি। কিন্তু আমরা ১০ বছরের ক্ষমতায় একজন মানুষের উপরেও অত্যাচার করিনি। পারলে তাদের সাহাজ্য করেছি।
বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর আরো বলেন, আমরা কোন মারামারি-হানাহানি করে ভোটে জয়লাভ করতে চাইনা। আমরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হতে চাই। এসময় তিনি সবাইকে সকাল সকাল ভোট কেন্দ্রে গিয়ে নৌকা প্রতীকে ভোট দেয়ার জন্য অনুরোধ জানান।
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মো: ছগির মাষ্টারের সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য দেন, জেলা আওয়ামী লীগ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মমিন টুলু, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মো: মোশারেফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মো: ইউনুছ হাজ্বি। সন্ধ্যার পরে মন্ত্রী পূর্ব ইলিশায় অপর এক পথসভায় বক্তব্য দেন। এখানে নৌকার পক্ষে ভোট চান তোফায়েল আহমেদ।

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

আগষ্ট ২০১৯
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« জুলাই    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।