ভোলায় উপকূল দিবসের দাবিতে আলোচনা সভা ও র‌্যালি

ইয়াছিনুল ঈমন, আমাদের ভোলা.কম।
আজ ভয়াল ১২ নভেম্বর। ১৯৭০ সালের এই দিনে প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাস উপকূলীয় অঞ্চলসহ ভোলার ওপর দিয়ে বয়ে যায়। ধারণা করা হয়,ওই ঝড়ে প্রায় ১০ লাখ মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলেন। এর মধ্যে ভোলায় লক্ষাধিক মানুষের প্রাণহানি ঘটে।
দিনটি স্মরণে আজ মোঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) সকালে ‘উপকূলের জন্য হোক একটি দিন,জোরালো হোক উপকূল সুরক্ষার দাবি’ এই পতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে ভোলায় ৭০ এর ১২নভেম্বর প্রলয়ঙ্করী ঘূর্নিঝড় স্বরনে প্রস্তাবিত উপকূল দিবস পালনে ভোলায় বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ব্যাপক কর্মসূচী পালন করে । দিবসটি উপলক্ষ্যে ভোলা প্রেস ক্লাব ও যুব রেড ক্রিসেন্ট এর উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হয়। কর্মসূচীর মধ্যে সকালে ভোলা প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
এই ভয়াল ঘূর্নিঝড় বেচেঁ থাকা সাংবাদিক ও সুশীল সমাজ এর নেতৃবিন্দর ঐ সময়ের ভিবিষিকা ময় ঘটনার কথা তুলে ধরেন।
এর সময় তারা বলেন, ঝড়-ঝঞ্ঝা বিক্ষুব্ধ এক জনপদের নাম উপকূল। যেখানকার মানুষ প্রতিনিয়ত প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করে। উপকূলবাসীর দিকে বছরে অন্তত একটি দিনে বিশেষভাবে নজর ফেলার জন্য, উপকূলের সংকট-সম্ভাবনার কথা বছরে অন্তত একটিবার সবাই মিলে বলার জন্যে উপকূলবাসীর পক্ষ থেকে ১২ নভেম্বরকে ‘উপকূল দিবস’ ঘোষণার দাবি জানায়।
যে দিবস উপকূল সুরক্ষার কথা বলবে, উপকূলের সংকট-সম্ভাবনার কথা বলবে, উপকূলকে এগিয়ে নেওয়া কথা বলবে। যে দিবসে উপকূলবাসী নিজেদের কথা বলতে পারবে। আর এভাবেই উপকূল এগিয়ে যাবে বিকাশের ধারায়। উপকূল দিবস ঘোষণার মধ্যদিয়ে উপকূলের সুরক্ষা, উপকূলের সম্ভাবনা বিকাশ, উপকূলের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের কাজ আরও সহজ হবে বলে বক্তারা মনে করেন। এসময় বাংলার কন্ঠ সম্পাদক এম হাবিবুর রহমান এর সভাপত্বিতে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন দৈনিক আজকের ভোলা সম্পাদক মু: শওকাত হোসেন, জেলা চেম্বারের পরিচালক মো: শফিকুল ইসলাম,ভোলা প্রেসক্লাবের সাবেক সম্পাদক সামসুল আলম মিঠু, বিজেপি ভোলা জেলা সভাপতি কামাল চৌধুরী ,সাংবাদিক হামিদুর রহমান হাসিব, সাংবাদিক কামরুল ইসলাম প্রমুখ।পরে একটি বনার্ঢ্য র‌্যালি বের হয়ে ভোলা শহর প্রদক্ষিন করে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

আগষ্ট ২০১৯
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« জুলাই    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।