চরফ্যাশনে ৩ দিনেও আহত সাংবাদিকদের মামলা নেয়নি ওসি 

চরফ্যাশন  প্রতিনিধি।

চরফ্যাসনে প্রকাশিত সংবাদের জের ধরে দৈনিক সময়ের চিত্র’র সম্পাদক ও জনকন্ঠ পত্রিকার নিজস্ব সংবাদদাতা এ আর এম মামুনের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় শনিবার মামুন বাদী হয়ে চরফ্যাসন থানায় মামলার জন্য অভিযো  দাখিলের তিন দিন অতিবাহিত হলেও চরফ্যাসন থানা পুলিশ এখন পর্যন্ত কোনো মামলা গ্রহণ ও কোন আসামি গ্রেফতার করেনি পুলিশ। উল্টো আসামিদের কাছ থেকে ওসি মনির মিয়া লিখিত অভিযোগ গ্রহণ করেছেন। সোমবার হামলাকারী সন্ত্রাসীরা শোডাউন করে থানায় গিয়ে এ অভিযোগ দেন বলে জানা গেছে ।

জানা যায়, সাম্প্রতিক সময়ে উপজেলার বাবুরহাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে নারী কেলেংকারী এবং দক্ষিণ মঙ্গল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম হোসেন সেন্টুর বিরুদ্ধে ভুয়া ভাউচার দিয়ে সরকারী টাকা আত্মসাত সংক্রান্ত প্রকাশিত সংবাদের জের ধরে গত ৪ সেপ্টেম্বর শুক্রবার রাতে চরফ্যাসন সদরের কালীবাড়ি রোডে প্রধান শিক্ষক গোলাম হোসেন সেন্টু ও জাকির হোসেন, সহকারী শিক্ষক আবুল কালাম সহ কয়েকজন সন্ত্রাসী সংঘবদ্ধ হয়ে সাংবাদিক মামুন ও শাহ কামালের পথ গতিরোধ করে তাদের উপর হামলা চালায় এবং শ্বাসরোধ করে সাংবাদিক মামুনকে হত্যা চেষ্টা করে। এ সময় সহকর্মী ও আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পরে সহকর্মীরা তাদেরকে উদ্ধার করে চরফ্যাসন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়।

অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন মামলা এবং গোলাম হোসেন সেন্টুর বিরুদ্ধে জাল সনদে চাকরি করার বিষয়ে বিভাগীয় মামলা রয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়।

চরফ্যাসন থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মনির হোসেন মিয়া বলেন, সাংবাদিক মামুনের এজাহারের আবেদন পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে। তবে অপরপক্ষও অভিযোগ করেছেন।

এদিকে তিনদিনেও অভিযোগটি মামলা হিসেবে গ্রহণ না করায় ভোলা জেলা অনলাইন নিউজ পোর্টাল ওনার্স এসোসিয়েশন ও জেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা  নিন্দা জানিয়ে দ্রুত সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়ার দাবি জানিয়েছন।

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

জুন ২০২৪
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« মে    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।