ভোলার ১৪ গ্রামে আজ পালিত হচ্ছে ঈদুল আযহা

ইয়াছিনুল ঈমন, আমাদের ভোলা.কম।

সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে আজ ১১ আগস্ট রবিবার ভোলা সদর, বোরহানউদ্দিন, লালমোহন, চরফ্যাশন ও তজুমদ্দিন উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের ১৪টি গ্রামের ৬ হাজারেরও বেশী মুসলমান পরিবার ঈদ-উল-আজহা উদযাপন করছে।

সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে ভোলা জেলার ১৩ হাজার মুসুলিস্ন একদিন আগেই আজ ঈদুল আজহা উদযাপন করছেন ও পশু কোরবানি দিচ্ছেন। এরা শুরেশ্বর ও সাতকানিয়া দরবার শরীফের অনুসারী। শরিয়তপুরের নরীয়া শুরেশ্বর দরবার শরীফ ও চট্টগ্রামের সাতকানিয়া মির্জাখীল দরবার শরীফের অনুসারীগণ প্রতি বছর সৌদির সাথে একই দিনে রোজা রাখেন ও ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা উদযাপন করেন। শুরেশ্বর দরবার শরীফের এক অনুসারী জানান, ভোলার সব ক’টি উপজেলায় তাদের অনুসারী আছে এবং তাদের সংখ্যা ১০ হাজারের কম নয়। ভোলায় তাদের ৬টি ঈদের জামাত হয়। ওই ঈদ জামাত হচ্ছে বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগী ইউনিয়নের মনিরাম ও খাসেরহাট, কাচিয়া ইউনিয়নের মুলাইপত্তন, লালমোহন উপজেলার পৌর এলাকায় মফিজ পাটোওয়ারী বাড়ির জামে মসজিদ, চরফ্যাশন উপজেলার জিন্নাগর ইউনিয়নের জালাল মহাজন বাড়ীর জামে মসজিদ ও মনপুরা উপজেলায় হাজিরহাটে একটি। অন্যদিকে সাতকানিয়ার অনুসারীদের সংখ্যা প্রায় ৩ হাজার। তাদের একমাত্র ঈদের জামাত হয়েছে টবগী ইউনিয়নের চৌকিদারবাড়ী জামে মসজিদে। জেলার বিভিন্ন স্থানে অবস্থানকারী অনুসারীরা ওই মসজিদে এসে ঈদের নামাজ আদায় করেন। ঈদের নামাজ শেষে তারা পশু কোরবানি দেন।

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

মে ২০২০
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« এপ্রিল  
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১ 

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।