ভোলায় বাবা-মা এর বিরুদ্ধে অন্তস্বত্তা মেয়ের সংবাদ সম্মেলন

মিথ্যা মামলা দেয়ার প্রতিবাদে বাবা-মা এর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেন মেয়ে স্বপ্না বেগম।

স্টাফ রিপোটার।
ভোলায় স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেয়ার প্রতিবাদে বাবা-মা এর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছে ৬ মাসের অন্তস¦ত্তা মেয়ে স্বপা বেগম। ভোলা শহরের স্থানীয় একটি পত্রিকা অফিসে এসে মেয়ে স্বপা বেগম ও তার স্বামী জসিমউদ্দিন এ লিখিত অভিযোগ করেন।
সংবাদ সম্মেলনে স্বপ্না বেগম লিখিত অভিযোগ করে বলেন আমার বাবা আলী হোসেন ৩০ ডিসেম্বর ২০১৭ইং তারিখে চরফ্যাশন উপজেলার শশীভূষণ থানার শামসুদ্দিন হাওলাদারের ছেলে মোঃ জসিম উদ্দিন এর সাথে ইসলামি শরিয়ত মোতাবেক আমাকে বিয়ে দেন। বিবাহের পর আমাদের সংসার সুখে শান্তিতে কাটছিলো। এমতাবস্থায় আমার বাবা আমার স্বামীর কাছ থেকে কিছু টাকা ধার নেন। কিন্তু তারা তাদের ওয়াদা মত ঠিক সময়ে ধারের টাকা পরিশোধ করেননি।আমার স্বামী আমার বাবার কাছে তার টাকা ফেরত চাওয়ায় আমার বাবা-মা এর সাথে আমার স্বামীর একটা বিরোধ এর সৃষ্টি হয়। আর এই বিরোধের জের ধরে আমার বাবা-মা গত ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ইং তারিখে আমার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজনের নামে ভোলা সদর থানায় একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। মামলাটির তদন্তের দায়িত্বপান ইলিশা ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই মোক্তার হোসেন। আমি মামলার বিষয়ে তার সাথে গিয়ে দেখা করে আমার বাবার মিথ্যা মামলার সকল কারন বলি। তখন এস আই মোক্তার হোসেন আমার কাছে ৬০ হাজার টাকা দাবি করে বলেন মামলাটি ভুয়া আমিও তা বুঝতে পারছি তাই র্চাজশিট থেকে আপনার স্বামীর নাম বাদ দিয়ে দেব।
পরবর্তীতে মামলাটির চুড়ান্ত রিপোর্ট দেওয়ার কথা বলে গত ২৩ অক্টোবর ২০১৮ইং তারিখে এস আই মোক্তার হোসেন আমার কাছ থেকে ৫৫ হাজার টাকা নেন কিন্তু তিনি উল্টো আমার বাবা-মা’র কাছ থেকে মোটা অংকের উৎকোচ গ্রহন করে আমার স্বামীসহ আরো দু’জনকে মামলায় জড়িয়ে গত ৩০ নভেম্বর ২০১৮ইং তারিখে ভোলা সিনিয়র ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলাটির মিথ্যা চার্জশিট দাখিল করেন। পরবর্তীতে আইনের সহায়তায় আমার স্বামীসহ মামলার সকল আসামি মামলাটি থেকে খালাস পান। গত ৪ ডিসেম্বর ২০১৮ইং তারিখে আমার বাবা-মা’র দেওয়া মিথ্যা মামলা থেকে বাচার জন্য আমার বাবা মা সহ ১৩ জনকে বিবাদী করে আমি ভোলা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ফৌঃ কাঃ বিধি ১০৭/১১৭ (সি) ধারায় একটি মামলা দায়ের করি। যাহার নং এমপি ২৬০/১৮ এবং বর্তমানে বিচারাধীন আছে। কিন্তু আমার মা আমার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দাখিলের মানহানি মামলা থেকে বাচার জন্য এস আই মোক্তার এর কুপরামর্শে গত ৩ জুলাই ২০১৯ইং তারিখে ভোলা বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালে আমাকে ভিকটিম করে আমার স্বামীসহ আরো ৪ জনকে জড়িয়ে আরেকটি মিথ্যা মামলা দেয় যার পিটিশিন নং ৪২৪।
মামলায় তিনি উল্লেখ করেন আমার স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোক জন আমার থেকে যৌতুক হিসাবে ৫ লক্ষ টাকা এনে দেওয়ার জন্য আমাকে গত ২৩ জুন ২০১৯ইং তারিখ মেরে ফেলে আমার লাশ গুম করে রেখেছেন।
কিন্তু আমি আমার স্বামীর সাথে বরিশালে সংসার নিয়া সুস্থ এবং ভালো আছি। আমি বর্তমানে ৬ মাসের অন্তসত্তা। আমি আতংকে আছি আমার বাব-মা যে কোন সময় আমাকে মেরে ফেলে আমার স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোক জনকে মামলা দিয়ে মোটা অংকের টাকা দাবি করবেন।
তাই আমার বাবা মার অত্যাচার ও মিথ্যা মামলা দাখিলের বিরুদ্ধে ন্যায় বিচার পাওয়ার জন্য সমাজের উচ্চ কর্মকর্তাগণের কাছে প্রার্থনা করছি।
অভিযুক্ত স্বপ্নার বাবা আলী হোসেনের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা মামলা করছি কারণ জসিম আমার মেয়ে কে জিম্মি করে আমাদের নামে অনেক মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাদের হয়রানি করছে। আমার মেয়ে কে আটকে রেখে আমাদের সাথে কোন রকম যোগাযোগ করতে দেয় না। আমারা তার পরিবার থেকে কোন টাকা পয়সা নেইনি এটা মিথ্যা।
স্বপ্নার কাছ থেকে ৬০ হাজার টাকা নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে ইলিশা ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই মোক্তার হোসেন বলেন, বিষয়টি সম্পুর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। এটি তাদের পারিবারিক ঝামেলা এব্যাপারে আমার কোনো হস্তক্ষেপ নাই। স্বপ্না বেগম কে আমি চিনিনা কখনো দেখিনি এবং কথাও হয়নি সেখানে টাকা নেয়ার প্রশ্নই ওঠেনা। এ বিষয়টি নিয়ে সিআইডি তদন্ত করেছে ৬ মাস আগে কিন্তু কোনো সত্যতা পায়নি।

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

অক্টোবর ২০২২
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« সেপ্টেম্বর  
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১ 

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।