ভোলায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হামলায় প্রবাসী আহত 

ভোলায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হামলায় প্রবাসী আহত

ভোলা প্রতিনিধি।

চরসামাইয়া ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডে জায়গা দখল করাতে সালিশে বসে উক্ত শালিশেই জমির মালিক প্রবাসী মোঃ আব্বাস তাহার বোন নেকু বেগম, বড় ভাই মোঃ জামাল, এদের তিনজন কে মধ্যযুগীয় কায়দায় জায়গা দখলকারী তাহাদেরই চাচাতো বোন শাহানুর বেগম এর স্বামী দেবর শাহানুর বেগমের ছেলে সন্তান মিলে মধ্যযুগীয় কায়দায় পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করেছেন। তাহারা তিনজনই এখন বলা সদর হসপিটালে সার্জিক্যাল ওয়ার্ডে ভর্তি আছেন।

 

আজ ২৩ ই জুলাই রোজ শনিবার সকাল ১০:০০ ঘটিকার সময় মেম্বার এবং তাহাদের নিজস্ব মুরুব্বি এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ কে নিয়ে প্রবাসী মোঃ আব্বাস এর ক্রয়কৃত দখলীয় জমি সে প্রবাসে থাকার সুবাদে যাহার থেকে ক্রয় করেছেন শাহানুর বেগম তারাই আবার রাতের অন্ধকারে দেয়াল উঠিয়ে রাতারাতি দোকানপাট তৈরি করে বসেছেন। এই বিষয় নিয়ে প্রবাসী মোঃ আব্বাস দেশে এসে আত্মীয়-স্বজন মুরুব্বী জনপ্রতিনিধিদের কাছে বিচার দিলে তাহাকে বিক্রেতা শাহানুর বেগমের ভাইরা আশ্বস্ত করেন যে তোমার কাছে শাহানুর যখন জমি বিক্রি করেছে এই জমিতে তার কোন হক নেই, সে জোর করে রাতের আধারে যখন দেয়াল তুলেছে আমরা দেয়াল ভেঙ্গে দেব তোমার চিন্তার কোন কারণ নেই।

 

এই বিষয় নিয়ে এলাকার গণ্যমান্যরা আজকে সালিশে বসেছেন।

কিন্তু সালিশে বসা অবস্থায় যখন সালিশদারেরা নির্দেশ দিয়েছেন যে উক্ত জমিটি সম্পূর্ণ মাপ যোপ করে আগে হিসাব করা হোক, যখন জমি মাপতে ফিতা নিয়ে গেছেন তখনই শাহানুর বেগমের স্বামী ১/মোঃ আব্দুল হক এর নেতৃত্বে ২/মোঃ ইয়াসিন,৩/মো:রেজু, ৪/মোঃ হানিফ, ৫/মোঃ এমরান, ৬//মোঃ আক্তার,৭/মোঃ জসিম,৮/মোঃ সিরাজ, ৯/মোঃ শাহাবুদ্দিন,১০/ মোঃ রফিক,১১/শাহানুর বেগম সহ আরো অজ্ঞাত ১০-১২ জন মিলে পূর্বপরিকল্পিতভাবে আমাদের উপর দেশীয় অস্ত্র নিয়ে অমানবিকভাবে এলোপাতাড়ি মারতে থাকে। তখন ইয়াসিন আমার মাথায় শক্ত লাঠি দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে একাধিক আঘাত করেন। এতে আমি রক্তাক্ত জখম হলে এই সময় আমার গলায় একটি বিদেশি স্বর্ণের চেইন ছিল যাহার ওজন ১০ আনা এবং আমার কাছে নগদ ২৫ হাজার টাকা ছিল হাতে একটি স্মার্ট ফোন ছিল স্যামসাং কোম্পানির সেইগুলো ওরা ছিনিয়ে নেন। এই সময় আমার চিৎকারে আমাকে বাঁচাতে আমার বোন নেকু বেগম এগিয়ে আসলে ইয়াসিন এর নেতৃত্বে আরো ৪-৫ জন মিলে আমার বোনকে বেধড়ক মারপিট করে এবং তাহাকে শীলতাহানি করেন। আমার বোনের গলায় থাকা আট আনার চেইন এবং কানের একটি দুল ওরা ছিনিয়ে নেন। এদের চিৎকারে আমার বড় ভাই মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন এগিয়ে আসলে তাকেও বেধড়ক মারধর করেন।

হামলার একপর্যায়ে আমাদের চিৎকারে প্রতিবেশী এবং সালিশদার সহ সবাই আমাদেরকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করেন। এই সময় হামলাকারিয়া পালিয়ে যান। আমরা অসহায় পরিবার, আমি মোঃ আব্বাস আলী আমার কাছে আমার চাচাতো বোন শাহানুর বেগম এই ৯ শতাংশ জমি বিক্রি করেন। আবার কেন আমি বিদেশ থাকা অবস্থায় রাতের অন্ধকারে তাহার দেবর স্বামী ছেলে সন্তান নিয়ে জোর করে দেয়াল তুলে দোকান তৈরি করে জায়গা দখল করেন। আমি যখন তার থেকে জমি ক্রয় করেছি তখন এই জমিটা ডোবা ছিল ছোট পুস্কুনির মতন। আমি বিদেশ থাকা অবস্থায় টাকা পাঠিয়ে প্রায় ২ লক্ষ টাকা খরচ করে বালি ফেলে ভরাট করেছিলাম। তাই আমি এখন দেশের আইন প্রশাসন সবার কাছে বিচার রেখে গেলাম আমার প্রবাস জীবনের কষ্টে অর্জিত পরিশ্রমের টাকা দিয়ে যাদের থেকে আমি সৎ ভাবে জমি ক্রয় করেছিলাম তারাই বা কেন জোর করে রাতের অন্ধকারে আমার জমি দখল করেন? আমি আপনাদের সাংবাদিকদের মাধ্যমে এর আমি সুস্থ তদন্ত সাপেক্ষে বিচার দাবি জানাচ্ছি।

এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত শাহানুর এবং ইয়াসিনের সাথে কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি।

ভোলা সদর মডেল থানার অফিসার্স ইনচার্জ এনায়েত হোসেন বলেন এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত কেউ অভিযোগ করেনি ,অভিযোগ করলে তদন্ত সাপেক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

সেপ্টেম্বর ২০২২
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« আগষ্ট  
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।