দৈনিক দখিনের সময় এর সাহিত্য পাতার বর্ণাঢ্য উদ্বোধন

রেজাউল করিম হিরা: আমাদের ভোলা.কম।

দৈনিক দখিনের সময়-এর সাহিত্য পাতার বর্ণাঢ্য উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত প্রেসক্লাব মিলনায়তনে দখিনের সময়-এর সাহিত্য পাতা “রূপসী সময় সাহিত্য আসর’-এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন বরিশালের জেলা প্রশাসক এস. এম অজিয়র রহমান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা সাহিত্য চর্চায় বরিশালের গৌরময় ঐতিহ্য তুলে ধরে এ ধারা এগিয়ে নেবার ক্ষেত্রে দৈনিক দখিনের সময়-এর প্রচেষ্টাকে স্বাগত জানান।
দখিনের সময়-এর সাহিত্য পাতা “রূপসী সময় সাহিত্য আসর’-এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ গোটা দক্ষিণ অঞ্চলের মননশীলতার মহিরুহু অভিভাবক প্রফেসর মোহাম্মদ হানিফ এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার মোয়াজ্জেম হোসেন ভূঁঞা, কবি হিসেবে তিনি মামুন মোয়াজ্জেম হিসেবে সমধিক পরিচিত। দৈনিক দখিনের সময়-এর প্রকাশক খন্দকার রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন বিএম কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রধান প্রফেসর মাহবুব আলম, বিশিষ্ট উদ্যোক্তা ও সমাজ সেবক আফরোজা কাজী, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী রেজিষ্ট্রার ড. বাহাউদ্দিন গোলাপ, দখিনের সময়-এর উপদেষ্টা চৌধুরী মিজানুর রহমান জাকির, বিশিষ্ট কলামিষ্ট আলম রায়হান প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন দৈনিক দখিনের সময়-এর সাহিত্য সম্পাদক শামীমা সুলতানা ও কবি ছোটন্দ্রনাথ চক্রবর্তী। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে ছিলো কবিতা আবৃত্তি ও সঙ্গীতানুষ্ঠান।
দখিনের সময়-এর সাহিত্য পাতা “রূপসী সময় সাহিত্য আসর’-এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনকালে বরিশালের জেলা প্রশাসক এস. এম অজিয়র রহমান বলেন, একটি পত্রিকায় বিভিন্ন শ্রেণী ও বয়সের পাঠকদের রসদ থাকতে হয়। এর মধ্যে প্রধান একটি বিষয় হচ্ছে সাহিত্য। এ বিভাগের মাধ্যমে দৈনিক দখিনের সময় শিক্ষার্থীদের জন্য একটি প্লাটফর্ম হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে বলে অশাবাদ ব্যক্ত করেন জেলা প্রশাসক এস. এম অজিয়র রহমান। তিনি বলেন, এর মাধ্যমে সাহিত্য অঙ্গন যেমন সমৃদ্ধ হবে তেমনই শিক্ষার্থীদের মধ্যে যোগাযোগ বাড়বে। বরিশালের জেলা প্রশাসক বলেন, উন্নয়ন মানে কেবল অবকাঠমোগত উন্নয়ন নয়। টেকশই উন্নয়নের মানে হচ্ছে, সামগ্রিক উন্নয়ন; শুভ কাজের উন্নয়ন। দৈনিক দখিনের সময়-এর আরো বেশি প্রচার কামনা করেন জেলা প্রশাসক এস. এম অজিয়র রহমান।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর মোহাম্মদ হানিফ বলেন, সাহিত্য-সংস্কৃতিতে বরিশাল অনেক অগ্রগামী। তিনি বরিশালের গর্বের নানান দিক তুলে ধরে বলেন, টেমস নদীর তীরে লন্ডন অবস্থিত; কীর্তনখোলা নদীর তীরে অবস্থিত বরিশাল। বরিশালের প্রতি তার অপার মমতার কথা তুলে ধরে সাদা মনের মানুষ প্রফেসর মোহাম্মদ হানিফ বলেন, কখনো বরিশাল ছেড়ে যাইনি। তিনি বরিশালের অগ্রযাত্রার প্রসঙ্গে বলেন, ১৮৮০ সালে বরিশালে শিক্ষিত ছিলো হাজারে সাত জন। এখন শতকরা নব্বই জন শিক্ষিত। তিনি বলেন, গুড বিগেনিং হাফ ডান। তিনি বলেন, এর চেয়ে সম্মৃদ্ধ মঞ্চ আর হতে পারে না।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে উপ-পুলিশ কমিশনার মোয়াজ্জেম হোসেন ভুঁঞা সাহিত্য চর্চার জন্য লিটল ম্যাগাজিনের উপর গুরুত্বারোপ করেন। এর পাশাপাশি সাহিত্য চর্চা এগিয়ে নেবার ক্ষেত্রে দৈনিক পত্রিকাও গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখতে পারে বলে মন্তব্য করেন মোয়াজ্জেম হোসেন ভুঁঞা। তিনি মামুন মোয়াজ্জেম হিসেবে কাব্য চর্চা করেন। তিনি বাচিক শিল্পিও। অনুষ্ঠানে তার কবিতা আবৃত্তি সবাইকে মুগ্ধ করে।
প্রফেসর এইচ এম মাহবুবুল আলম বলেন, বর্তমানের সুযোগ নিয়ে এগুতে হবে। এ জন্য তিনি নিজকে সমৃদ্ধ করার উপর গুরুত্বারোপ করেন। দৈনিক দখিনের সময়-এর সাহিত্য পাতার আয়োজনকে স্বাগত জানান প্রফেসর এইচ এম মাহবুবুল আলম।
দখিনের সময়-এর উপদেষ্টা চৌধুরী মিজানুর রহমান জাকির বলেন, অসংখ্য পত্রিকার মাঝে দৈনিক দখিনের সময় সাহিত্য চর্চাকে এগিয়ে নিয়ে ভিন্ন মাত্রায় অবদান রাখছে। এ সময় পত্রিকাটির ব্যাপক প্রচারের কথাও উল্লেখ করেন জাকির চৌধুরী।

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

অক্টোবর ২০২২
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« সেপ্টেম্বর  
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১ 

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।