শিক্ষার্থীর ফোন পেয়ে খাদ্য সামগ্রী নিয়ে হাজির ভোলার ইউএনও 

ইয়াছিনুল ঈমন, আমাদের ভোলা.কম। 

কলেজ শিক্ষার্থীর ফোন পেয়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে  ভোলা সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মিজানুর রহমান। রবিবার দুপুরে  ভোলা সদর উপজেলার ধনিয়া ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের নবীপুর এলকার অর্ধশতাধিক খেটে খাওয়া শ্রমিক,অসহায় দরিদ্র্য  গরীব লোকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে  খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিলেন ইউএনও। করোনা আতঙ্কে বাড়ী থেকে বের হতে পারছেন না খেটে খাওয়া দিনমজুররা। বাড়ীর বাইরে যেতে না পারায় তাদের দিন কাটছে অনাহারে। তাই  গাড়ীতে করে চাল, ডাল, আলু, সাবানসহ নিত্যপন্য খাবার সামগ্রী  পৌছে দিচ্ছেন উপজেলার বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় খেটে খাওয়া দিনমজুরদের বাড়ী বাড়ী গিয়ে খাদ্যসামগ্রী তুলে দিচ্ছেন অসহায় পরিবারের হাতে। খাবার পেয়ে আনন্দে চোখের পানি ঝড়িয়েছেন অনেকের।

খাবার সামগ্রী বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার (পিআইও) জিয়াউর রহমান, চ্যানেল-২৪ এর সাংবাদিক আদিল হোসেন তপু প্রমুখ। ভোলা সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মিজানুর রহমান জানায়, আমরা দিন-রাত চেষ্টা করছি প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ সামগ্রী অসহায় মানুষের হাতে তুলে দেয়ার। যাতে নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষ ত্রাণ পায় । এ জন্য আমি নিজে চেষ্টা করি সরাসরি ত্রাণ বিতরণে অংশগ্রহন  করার। এতে করে প্রকৃত অসহায়রা সরকারের খাদ্য সামগ্রী পাচ্ছেন। এ জন্য আমি প্রতিদিন খেটে খাওয়া মানুষের জন্য ত্রাণ নিয়ে বের হই। অপর দিকে খাদ্য সামগ্রী নিতে ঝুঁকি নিয়ে কাউকে ঘর থেকে বের হতে হচ্ছেনা। এ ভাবে পর্যায়ক্রমে  উপজেলার সকল ইউনিয়নে কর্মহীন দরিদ্র অসহায়দের মাঝে খাদ্য পৌছি দেয়ার চেষ্টা করছি। উল্লেখ্য,জেলা প্রশাসক এর নিদের্শ ক্রমে এর আগে ভোলা বাসটার্মিনালে প্রায় দেড়শ পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করা হয়

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

জুন ২০২০
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« মে  
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০ 

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।