কৃষিপণ্যের উৎপাদন অব্যাহত রাখা জরুরিঃ বারেকুল ইসলাম চৌধুরী

নিউজ ডেস্ক , আমাদের ভোলা.কম।

কোস্ট ট্রাস্টের সহকারী পরিচালক বারেকুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, কৃষিপণ্যের উৎপাদন অব্যাহত রাখা জরুরি। করোনা ভাইরাসের কারণে সারা পৃথিবী লকডাউন, উৎপাদনমুখী সকল কর্মকান্ড স্থবির হয়ে পড়েছে। কক্সবাজারে কলাতলীতে উদ্যোক্তা পর্যায়ে স্থাপিত কাঁকড়া হ্যাচারিতে সীমিত আকারে ক্রাবলেট (কাঁকড়া) উৎপাদন চালু রাখা হয়েছিল। হ্যাচারিতে মা কাঁকড়া থেকে পোনা হ্যাচিং করে, জোয়া (কাঁকড়া) পর্যায়ে পাঁচটি ধাপ শেষে মেগালোপা পর্যায়ে ক্রাবলেট ( কাঁকড়া) উৎপাদন করা সম্ভব হয়েছে। প্রাথমিকভাবে হ্যাচারিতে উৎপাদিত ৮,৩৭০ টি ক্রাবলেট (কাকড়া) টেকনাফের চাষি নুরুল বাসারকে এগুলো নার্সিং করে সফটসেল কাঁকড়া করার জন্য প্রদান করা হয় । পরিবেশ অনুকূল থাকলে আগামী তিন মাসের মধ্যে সফটসেল কাঁকড়া করে এ থেকে প্রায় দেড় লাখ টাকা আয় করা যাবে। আমরা আশা করছি, আগামী এক মাসের মধ্যে হ্যাচারি থেকে প্রায় ২০ হাজার পোনা উৎপাদন করা যাবে। গত বছর (ছয় মাসে) আমরা এখানে ২৬ হাজার পোনা সফলভাবে উৎপাদন করেছি। কারিগরি সহায়তা ও সার্বক্ষণিক সহায়তামূলক তত্ত্বাবধানের জন্য পিকেএসএফের সংশ্লিষ্ট সকল কর্মকর্তার প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতা। বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাতে চাই, প্রকল্পের সহকারী ভ্যালু চেইন ফ্যাসিলিটেটর জনাব রতন ভট্টাচার্যকে, যিনি বর্তমানের করোনা পরিস্থিতিতেও সার্বক্ষণিকভাবে হ্যাচারিতে অবস্থান করে এই কাজটি পরিচালনা করে যাচ্ছেন। IFAD এর অর্থায়নে PKSF এর Promoting Agricultural Commercialization and Enterprises (PACE) প্রকল্পের সহযোগিতায় কোস্ট ট্রাস্ট এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

জুন ২০২৪
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« মে    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।