ভোলায় জেলেদের জন্য অন্যরকম এক আয়োজন

ইয়াছিনুল ঈমন, আমাদের ভোলা.কম।
দুপুর গড়িয়ে বিকেল। এমন সময় শান্ত ছিলো মেঘনা। চারদিকে উৎসুক জনতার ভীড়। এর মাঝে ঢেউয়ের তালে তালে ছুটছে নৌকা। বিভিন্ন ম্লোগান দিয়ে এগিয়ে চলছে নৌকা। অবশেষে গন্তব্যে এসেই হাসি মুখে ফিরলো বিজয়ী দল। এ চিত্রই দেখা গেল মেঘনার ঘেষা জনপদ ভোলার ইলিশা ইউনিয়নের ফেরিঘাট এলাকায়।
জেলে উৎসবকে কেন্দ্র করে পুরো এলাকা যেন উৎসবের জনপদে পরিনত হয়েছে। জীবন-জীবিকার টানে ছুটে চলা জেলেদের মুখে হাসি ফুটানোর লক্ষ্যে আয়োজন করা হয়েছিলো ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইসের। সেই প্রতিযোগীতায় পরিনত জনসমুদ্রে।
বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে পূর্ব ইলিশা যুব ফাউন্ডেশনের আয়োজনে জেলে উৎসবের আয়োজন করে। মাসব্যাপী জেলে উৎসবের বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারী) ছিলো সমাপনী দিন। শেষ দিনের বর্নাঢ্য অনুষ্ঠানে ছিলো নানা আয়োজন। এরমধ্যে জেলেদের মধ্যে নৌকা বাইস, গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী হা-ডু-ডু খেলা, কলাগাছে উঠা ও দাড়িটানাসহ নানা আয়োজন। এছাড়াও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরন হয়। প্রদর্শন করা হয় জাদু প্রদর্শনী।
সকালে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে ‘জেল উৎসবের সমাপনি’ অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর একটি বর্নাঢ্য র‌্যালি ভোলা-লক্ষীপুর সড়কের বিভিণœ এলাকা প্রদক্ষিন করে অনুষ্ঠানস্থলে এসে শেষ হয়। র‌্যালি শেষে জেলেদের নিয়ে মঞ্চ নাটক ‘জেলেদের জীবনচিত্র’ নাটক পরিবেশিত হয়। এরপর কবিতা আবৃত্তি অনুষ্ঠিত হয়।
জেলে উৎসবের বিভিণœ প্রতিযোগীতায় শুধুমাত্র মেঘনার জেলেরা অংশগ্রহন করে।
পূর্ব ইলিশা যুব ফাউন্ডেশনের সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেন জানান, জীবন-জীবিকার টানে মেঘনায় প্রতিনিয়ত মাছ শিকার করেন জেলেরা। কিন্তু তারা আনন্দ-উৎসবের সুযোগ থেকে বঞ্চিত। ওই সব জেলের মুখে হাসি ফুটানো ও সবার সাথে আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে জেলেদের নিয়ে ‘জেলে উৎসবের’ আয়োজন করা হয়। নৌকা বাইস প্রতিযোগীতায় চডার মাথা, বিশ্ব রোড জয়লাভ করে।
রাতে পুরস্কার ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটবে। পূর্ব ইলিশা ফাউন্ডেশনের একঝাককর্মী নিরলসভাবে পুরো অনুষ্ঠানে সহযোগীতা করেছেন।

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

সেপ্টেম্বর ২০২০
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« আগষ্ট  
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০ 

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!