লালমোহনে দুর্বৃত্তের দেয়া আগুনে পুড়ে গৃহবধূসহ নিহত ২

সাইফুদ্দিন ছোটন, আমাদের ভোলা.কম।
ভোলার লালমোহনে ঘুমন্ত অবস্থায় গভীর রাতে সিঁধ কেটে ঘরে প্রবেশ করে দুর্বৃত্তদের আগুনে পুড়ে সুরমা (২৫) নামের এক গৃহবধূ ও শিশু খাদিজা (৮)সহ ২ জন নিহত হয়েছে। গৃহবধূ ঘটনাস্থলে মারা গেলেও তার বড় বোনের মেয়ে খাদিজা শনিবার দুপুর ১টারদিকে বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যায়। এসময় ওই গৃহবধুর বড় বোন আগুনে পুড়ে মারাত্মক আহত হয়। তাকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে লালমোহন চরভূতা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের খারাকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে লালমোহন থানায় নিয়ে আসে।
জানা গেছে, নিহত সুরমা তার স্বামীর সাথে বিরোধের কারণে গত ১০ দিন ধরে বড় বোন আংকুরা বেগমের বাড়িতে উঠে। ওই বাড়িতে শুক্রবার রাতে খাবার পর ঘুমিয়ে পড়ে তারা। এসময় মাটির ঘরের পেছন দিয়ে সিঁধ কেটে প্রবেশ করে ঘাতক। চৌকিতে ঘুমন্ত অবস্থায় লেপ তোষকে আগুন ধরিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা। আগুনে সুরমার মৃত্যু হয়। এসময় তার বড় বোন আংকুরা ও বোনের মেয়ে খাদিজা (৮) পুড়ে আহত হয়। তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে সেখানে খাদিজা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।
একই বাড়ির যুবক রাকিব জানান, রাত অনুমান সাড়ে ১২ টা থেকে ১ টার দিকে ঘটনা ঘটে। তাদের আর্তচিৎকার শুনে ঘরে প্রবেশ করে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। কে এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা জানা যায়নি।
নিহত সুরমার মেঝ বোন শাহিনুর ও ভাই মহিউদ্দিন জানান, সুরমার বাবার বাড়ি লালমোহন ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের প-িত বাড়ি। সুরমার ৬ মাস আগে পাশ্ববর্তী বোরহানউদ্দিনের দেউলা এলাকার রফিকের সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর স্বামী রফিকের সাথে বনিবনা হচ্ছিল না। তাদের সাথে প্রায় ঝগড়া বিবাদ লেগে থাকতো। এ নিয়ে বিচার শালিশও হয়। গত ১০দিন আগে সুরমাকে রেখে তার স্বামী চলে যায়। সে বড় বোন আংকুরার বাড়িতে উঠে। সেখানে এ ঘটনা ঘটে।
লালমোহন থানার অফির্সাস ইনচার্জ (ওসি) মীর খায়রুল কবীর বলেন, এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। মামলার ভিত্তিতে তদন্ত করে প্রকৃত অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

সেপ্টেম্বর ২০২৩
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।