ভোলায় বিষধর রাসেল ভাইপার সাপ উদ্ধার

বিশেষ প্রতিনিধি, আমাদের ভোলা।

ভোলার মনপুরায় নদীরপাড়ে পরিত্যক্ত মাছ ধরার জালে আটকে থাকা অবস্থায় ভয়ংকর বিষধর রাসেল ভাইপার (চন্দ্রবোড়া) সাপ উদ্ধার করে বনবিভাগ। তবে স্থানীয়রা প্রথমে অজগর সাপ মনে করলেও বন বিভাগের কর্মকর্তারা পৃথিবীর সবচেয়ে ভয়ংকর সাপ রাসেল ভাইপার বলে শনাক্ত করেন। এতে নদীরপাড়ে এলাকার গ্রামগুলোর বাসিন্দাদের মধ্যে বিষধর সাপের আতঙ্ক বিরাজ করছে। মঙ্গলবার (২ জানুয়ারী) দুপুর সাড়ে ৩ টায় উপজেলার মনপুরা ইউনিয়নের কাউয়ারটেক কিল্লার পশ্চিম পাশে নদীরপাড়ে পরিত্যক্ত জালে আটক অবস্থায় রাসেল ভাইপার সাপটি উদ্ধার করে বনবিভাগের রামনেওয়াজ বিটের বনবিভাগের কর্মকর্তারা। পরে বিকেল ৪টায় সাপটি উদ্ধার করে রামনেওয়াজ বিটের বনবিভাগের কর্মকর্তারা সোনারচর সংরক্ষিত বনাঞ্চলে অবমুক্ত করে।

বনবিভাগের রামনেওয়াজ বিটের কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম মিলন জানান, কাউয়ারটেক নদীর পাড়ে পরিত্যক্ত জালে অজগর সাপ আটকানো অবস্থায় রয়েছে বলে রামনেওয়াজ বনবিভাগের বিট কার্যালয়ে এসে খবর দেয় নদীরপাড় সংলগ্ন গ্রামের একাধিক বাসিন্দা। পরে বনবিভাগের সদস্যরা নদীরপাড়ে জালে আটকানো সাপটি অজগর নয়, এটি পৃথিবীর সবচেয়ে ভয়ংকর সাপ রাসেল ভাইপার বলে শনাক্ত করা হয়। পরে রাসেল ভাইপার সাপটি উদ্ধার করে সোনারচর সংরক্ষিত বনাঞ্চলে অবমুক্ত করে।

এই ব্যাপারে মনপুরা বনবিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্ত রাশেদুল ইসলাম জানান, বাংলাদেশে যে সব সাপ দেখা যায় তারমধ্যে রাসেল ভাইপার (চন্দ্রবোড়া) সাপটি সবচেয়ে বিষধর। আক্রমণের ক্ষিপ্র গতি ও বিষের তীব্রতার কারনে এই সাপটিকে কিলিং মিশন বলে ডাকা হয়।

এই রেঞ্জ কর্মকর্তা আরও জানান, রাসেল ভাইপার সাপটি নিচু জমির ঘাসযুক্ত উন্মুক্ত পরিবেশে এবং কিছুটা শুষ্ক পরিবেশে বাস করে। এরা নিশাচর, এরা খাদ্য হিসাবে ইদুঁর, ছোট পাখি, টিকটিকি ও ব্যাঙ আহার করে। অন্যান্য সাপ ডিম থেকে বাচ্চার জন্ম হয়, এই সাপ সরাসরি বাচ্চা দেয়। এরা বছরের যেকোন সময় প্রজনন করে। তাই সবাইকে সচেতন থাকার পরামর্শ দেন এই কর্মকর্তা

ফেসবুকে লাইক দিন

আর্কাইভ

ফেব্রুয়ারি ২০২৪
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« জানুয়ারি    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯  

সর্বমোট ভিজিটর

counter
এই সাইটের কোন লেখা অনুমতি ছাড়া কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ!
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।